গলাচিপায় ডায়রিয়ায় শিশুমৃত্যু, হাসপাতালে ছয় গুণ রোগী

অবশ্যই পরুন

অতিরিক্ত গরম ও ভ্যাপসা আবহাওয়ায় পটুয়াখালী গলাচিপা উপজেলায় বেড়েছে ডায়রিয়ার প্রকোপ। এরই মধ্যে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ১১ বছরের এক শিশু মারা গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছে ২১ জন। ১৯ শয্যার হাসপাতালটিতে এখন রোগীর সংখ্যা ১১৯।

ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া শিশুটির নাম মিম (১১)। সে সদর ইউনিয়নের দক্ষিণ চরখালী গ্রামের মো. আইয়ুব মাতবারের মেয়ে। সে দক্ষিণ চরখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।
চাচা আনছার মাতবার জানান, মিমি ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ছিল।
গলাচিপায় ডায়রিয়ায় শিশুমৃত্যু, হাসপাতালে ছয় গুণ রোগী

শুক্রবার দুপুরে কয়েক বার বমি করার পর নিস্তেজ হয়ে পড়ে। সন্ধ্যায় গলাচিপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। শনিবার সরেজমিন, গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১১৯ জন রোগী দেখা গেছে। যা শয্যার চেয়ে ছয় গুণ বেশি। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি নামে ৫০ শয্যা হলো প্রকৃত পক্ষে এতে রয়েছে ১৯ বেড।

প্রতিদিন ১৫-২০ জন নতুন রোগী ভর্তি হচ্ছে। ফলে রোগীর চাপ সামলাতে চিকিৎসক, নার্সদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। ধারণ ক্ষমতার ছয় গুণ রোগী ভর্তি থাকায় হাসপাতালের মেঝে ও বারান্দায় তিল পরিমাণ ঠাঁইও নাই। হাসপাতালের আউটডোর থেকে চিকিৎসা নিচ্ছে বেশ কিছু রোগী।

ডায়রিয়া আক্রান্তদের মধ্যে শিশু ও নারীর সংখ্যা বেশি। এছাড়া নিজ বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছে, এমন রোগীর সংখ্যাও কম নয়। হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ২১ জন ভর্তি হয়েছে। এছাড়া গত সাত দিনে ১১৫ জন এবং এক মাসে ৪১৫ জন রোগী ভর্তি হয়েছে।

এ ব্যাপারে গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মেজবাহ উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, এ মৌসুমে ডায়রিয়ার প্রকোপ রয়েছে। এ ধরনের রোগ দেখা দিলে বার বার খাবার স্যালাইন দিতে হবে। একই সঙ্গে অসুস্থ ব্যক্তিকে দ্রুত উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

সম্পর্কিত সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

ডাসারে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু

মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার কাজীবাকাই দক্ষিণ মাইজপাড়া পানিতে পড়ে দুই চাচাতো বোনের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা ১ টার দিকে উপজেলার...