নারীপাড়ায় বিএনপি নেতাকে নিয়ে ত্রাণের তালিকা:আ’লীগ নেতার ওপর হামলা

অবশ্যই পরুন

আওয়ামী লীগ নেতাকে বাদ দিয়ে বিএনপির নেতাকে সাথে নিয়ে ত্রাণের তালিকা প্রস্তুতের সময় বাধা দিলে হামলা করা হয় ওই নেতার ওপরে। বানারীপাড়া উপজেলার চাখার ইউনিয়নে সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে,৪নং ওয়ার্ডের আওয়ামী
লীগের সভাপতি বাবুল সিকদার ও স্থানীয় ইউপি সদস্য মেজবাউদ্দিন সোহেল ওই ওয়ার্ডের বিএনপির সাধারণ সম্পাদক,গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরিশাল-২ (বানারীপাড়া-উজিরপুর) আসনে বিএনপি প্রার্থী এস,সরফুদ্দিন আহম্মেদ সান্টুর

সঙ্গে বানারীপাড়ার বাসষ্ট্যান্ডে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের ওপর গুলিবর্ষণ মামলার অন্যতম আসামী ও ২০০১ সালে ওই এলাকার আওয়ামী ঘরণার পরিবারের ওপরে নির্যাতন করার মুলহোতা কুদ্দুস ফকিরকে সাথে নিয়ে ত্রাণ বিতরণের নামের
তালিকা করার প্রতিবাদ করায় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির] উদ্দিন মহুরীকে মারধর করা হয়। এঘটনায় ওই এলাকায় আওয়ামী লীগ’র নেতা-কর্মীদের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। চাখার ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন মহুরী অভিযোগ করেন শনিবার সন্ধ্যায় স্থানীয় ইউপি সদস্য মেজবাউদ্দিন সোহেল ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবুল সিকদার এলাকার জনৈক সান্টুর দোকানে বসে ওয়ার্ড বিএনপির
সাধারণ সম্পাদক কুদ্দুস ফকিরকে নিয়ে ত্রাণ বিতরণের নামের তালিকা তৈরি করছিলেন। এ খবর পেয়ে তিনি সেখানে গিয়ে তাকে না জানিয়ে বিএনপি নেতাকে নিয়ে তালিকা করার বিষয়ে তাদের কাছে জানতে চান। এসময় ইউপি সদস্য মেজবাউদ্দিন

সোহেল বালী ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবুল সিকদার তাকে কোন নামের সুপারিশ থাকলে তা নিয়ে পরের দিন রোববার সকাল ৯টায় এলাকার আজাদ মার্কেটে যেতে বলেন। নাসির উদ্দিন মহুরী রোববার সকাল ৯টায় সেখানে গিয়ে তাদের কাউকে
না পেয়ে চাখার বাজারে নিজ প্রতিষ্ঠানে যান। বেলা ১১ টার দিকে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবুল সিকদার মুঠোফোনে কল করে নাসির উদ্দিন মহুরীকে সীল নিয়ে চাখার ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে নেন।

এসময় ওই ওয়ার্ডের ত্রাণের
চূড়ান্ত তালিকায় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তাকে সাক্ষর দিতে বলেন। তাকে বাদ দিয়ে ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদককে নিয়ে করা তালিকায় নাসির উদ্দিন মহুরী সাক্ষর দিতে অস্বীকৃতি জানানোর পাশাপাশি এর
প্রতিবাদ জানান। এ নিয়ে বাগবিতন্ডার এক পর্যায়ে ইউপি সদস্য মেজবাউদিন সোহেল বালী ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবুল সিকদার তাকে মারধর করেন। চাখার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেলিম সরদার সহ
সেখানে উপস্থিত অন্যরা এসময় তাকে রক্ষা করেন। তাৎক্ষনিক নাসির উদ্দিন

মহুরী বিষয়টি ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খিজির সরদার,ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আ. মালেক হাওলাদার ও সাধারণ সম্পাদক ওয়াহিদুজ্জামান মিলনকে অবহিত করেন। পরে তিনি চাখার ১০ শয্যা বিশিষ্ট
হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নেন। এ প্রসঙ্গে চাখার ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মেজবা উদ্দিন সোহেল বালী অকপটে স্বীকার করে বলেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতিকে গালাগাল করায় তিনি নাসির উদ্দিন মহুরীকে
মারধর করেছেন । তিনি আরও জানান তারা দোকানে বসে ত্রাণের নামের তালিকা করায় সেখানে বিএনপির কেউ উপস্থিত থাকলে তার দায়ভার তার নয়।

সম্পর্কিত সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আগৈলঝাড়ায় শোভা ছড়াচ্ছে বসন্তের শিমুল ফুলের সৌন্দর্য

শীত বিদায় হয়েছে প্রকৃতি থেকে। প্রকৃতিতে চলছে বসন্ত। এরই মাঝে ফুটেছে নানান রং এর ফুল। শিমুল গাছে তাকালেই দেখা...